• ২০২২ Jul ০২, শনিবার, ১৪২৯ আষাঢ় ১৮
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৭:০৭ পূর্বাহ্ন
English
পরিচালনাপর্ষদ
আমাদের সাথে থাকুন আপনি ও ... www.timebanglanews.com

আইনি বাধা না থাকলে খালেদাও দাওয়াত পাবেন: কাদের

  • প্রকাশিত ১১:০৭ পূর্বাহ্ন শনিবার, Jul ০২, ২০২২
আইনি বাধা না থাকলে খালেদাও দাওয়াত পাবেন: কাদের
ছবি সংগ্রহীত
এ,কে,সুমন- নিজস্ব প্রতিবেদক

আইনি বাধা না থাকলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকেও পদ্মা সেতুর উদ্বোধনীতে দাওয়াত দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শনিবার সকালে রাজধানীর মহাখালীতে ব্র্যাকের উদ্যোগে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নারী চালকদের সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি। এছাড়া বিশ্বব্যাংক ও সব রাজনৈতিক দলকে আমন্ত্রণ জানানো হবে বলেও তিনি জানান।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে কে পক্ষে, কে বিরুদ্ধে তা আমরা দেখবো না। রাজনৈতিকভাবে যারা বিরোধিতা করেছে, তাদেরও আমন্ত্রণ জানাব, চিঠি পাঠাব।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দাওয়াত পাবেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, নিয়মের মধ্যে পড়লে অবশ্যই পাবেন। এখন উনি তো সাজাপ্রাপ্ত। বিএনপি চেয়ারপারসন হিসেবে পাওয়ার কথা। বিরোধীরা সবাই পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে দাওয়াত পাবেন। বিএনপি নেতারাও দাওয়াত পাবেন।

তিনি আরো বলেন, ২৫ জুনের প্রস্তুতি শুরু করেছি। বিদেশিদের আমন্ত্রণ জানাব। বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টরকেও আমন্ত্রণ জানাব।

পরে বিএনপি প্রসঙ্গে বলেন, তারা আন্দোলনের নামে রাস্তার ভাষায় কথা বলছে। এমনকি প্রধানমন্ত্রীকেও হত্যার হুমকি দিচ্ছে। দেশে বিদেশে ১৫ আগস্টের পুনারাবৃত্তির অপচেষ্টা করছে। ক্ষমতার পরিবর্তন চাইলে বিএনপিকে নির্বাচনে অংশ নিতে হবে।

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধগতি নিয়ে বিএনপির সমলোচনার জবাবে তিনি বলেন, দলটির কিছু নেতা আবোল তাবোল বকছেন। তাদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে। মাথা খারাপ হয়েছে কারণ, পদ্মা সেতু, মেট্রোরেলকে তারা সহ্য করতে পারছে না। এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট তারা জীবনে দেখেও নাই, করেও নাই। শেখ হাসিনা করছে এ জন্য তাদের বুকে বিষব্যথা। ব্যথা আর জ্বালায় জ্বলছে।

অন্ধকার চোরাগোলি দিয়ে ক্ষমতায় চেতে চাইলেও তা কখনো সম্ভব না বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে জানানো হয়, নারী প্রশিক্ষণার্থীদের ষষ্ঠ ব্যাচে মোট ১০ জন নারী ও একজন তৃতীয় লিঙ্গেরসহ মোট ১১ জন প্রশিক্ষণার্থী ছিলেন। উত্তরা, আশকোনা ও নিকেতনে অবস্থিত ব্র্যাক ড্রাইভিং স্কুলে ৩ মাসের আবাসিক ও ৩ মাসের শিক্ষানবিশ প্রশিক্ষণ শেষে বিআরটিএ থেকে ড্রাইভিং লাইসেন্স পেয়েছেন তারা।

সর্বশেষ